• ২০ আশ্বিন১৪২৯  - বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

ক্ষমতা হারানোর ভয়ে সরকার উন্মত্ত হয়ে গেছে: গণতন্ত্র মঞ্চ

ক্ষমতা হারানোর ভয়ে সরকার উন্মত্ত হয়ে গেছে: গণতন্ত্র মঞ্চ

রাজধানীর বনানী ও কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে বিএনপি নেতাদের ওপর হামলা  এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে সভা-সমাবেশে হামলার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে গণতন্ত্র মঞ্চ।

রোববার এক যৌথ বিবৃতিতে এ নিন্দা জানিয়ে জোটের নেতারা বলেন, ‘জনসম্মতিহীন সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে ভীত হয়ে পুরোপুরি দলীয় গুণ্ডা বাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর নির্ভরশীল হয়ে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চাচ্ছে। পায়ের তলার মাটি সরে যাওয়ায় সরকার পুরোপুরি উন্মত্ত হয়ে গেছে।’

সাত দলের জোট গণতন্ত্র মঞ্চের পক্ষে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নোয়াখালী থেকে কর্মসূচি করে ফেরার পথে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে বিএনপির নেতা বরকতউল্লাহ বুলুর ওপর হামলা এবং তাকে ও তার স্ত্রীকে আহত করা এক নজিরবিহীন ঘটনা। ঢাকার বনানীতে পুলিশের গুলিতে নিহত নেতাকর্মীদের স্মরণে মোমবাতি প্রজ্বালনের মতো কর্মসূচিতেও সরকারি গুণ্ডা বাহিনী দিয়ে হামলা করে মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, তাবিথ আউয়ালসহ নেতাকর্মীদের আহত করা স্পষ্ট করছে সরকার পুরোপুরি উন্মত্ত হয়ে গেছে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সারা দেশে বিএনপির সভা-সমাবেশ ও নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে হামলা, বিভিন্ন জেলায় গণতন্ত্র মঞ্চের সভা-সমাবেশ ও শরিক বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা-মামলা, বিভিন্ন স্থানে বামপন্থী দলগুলোর কর্মসূচিতে হামলা সরকারের মরিয়া অবস্থার প্রকাশ। সারা দেশে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর গুণ্ডা বাহিনী এবং পুলিশ বাহিনীকে লেলিয়ে দিয়ে এই মরিয়া আক্রমণে কেবল হামলা-মারপিট-ভাঙচুর-লুটপাটই নয়, এমনকি কুপিয়ে ও গুলিবর্ষণ করেও হত্যা করছে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘সরকার যতই ভাবুক দমন-পীড়ন করে ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখা যাবে, কিন্তু সেটা কেবল বোকার স্বপ্ন ছাড়া আর কিছুই নয়। জনগণের উত্থানে এই অত্যাচারের স্টিমরোলার অচিরেই ভেঙে পড়বে।’

বিবৃতিতে ‘সব অত্যাচার দমন, পীড়ন, নির্যাতন এবং হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে জনগণের বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলা এবং ফ্যাসিবাদী সরকার ও শাসনব্যবস্থার পতনের লড়াইকে’ জোরদার করার আহ্বান জানানো হয়।

অন্যান্য
ভ্রমন