• ১৬ মাঘ১৪২৯  - রবিবার, জানুয়ারী ২৯, ২০২৩

স্বাধীনতার পর কতটা এগিয়েছে উচ্চশিক্ষা

স্বাধীনতার পর কতটা এগিয়েছে উচ্চশিক্ষা

করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার অনেক বছর আগে থেকেই আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় সর্বনাশের বীজটি রোপণ করা হয়। অঙ্কুরের মাঝে সীমাবদ্ধ নেই, সময় পরিক্রমায় ওই অনাকাক্সিক্ষত বীজটি দীর্ঘদিনে এখন অনেকটাই পত্র-পুষ্প-ফল ও শাখা-প্রশাখায় বিস্তৃত আকার ধারণ করেছে। যাদের ওপর শিক্ষার ব্যবস্থাপনা ও দেখভাল করার দায়িত্ব, তাদের দায়িত্বহীনতা-উদাসীনতা ও খামখেয়ালিপনা এবং উলটো যাত্রা বিগত তিন দশকে সর্বনাশের প্রক্রিয়াটিতে জলসিঞ্চন করায় দিনে দিনে তা ভয়াবহ রূপ নেয়। হয়তো ইচ্ছা করে কেউ করেননি; কিন্তু কেউ স্বীকার করুন আর না করুন-বাস্তবে সবার সামনেই এমন বীজ বোনার কাজটি হয়ে গেছে।

ব্রিটিশ আমলে আমি যাব না। পাকিস্তান আমল, এমনকি আমাদের স্বাধীনতার পর সত্তর কিংবা আশির দশকে যাদের জন্ম, তাদেরও বলে সহজে বোঝানো যাবে না যে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন উচ্চশিক্ষার ফাঁদে পড়ে লাখ লাখ তরুণ-তরুণীর বর্তমানে কী ত্রাহি অবস্থা! অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন তিন বছর মেয়াদি ডিগ্রি পাশ কোর্সে এখন সব শাখাতেই (কলা, সামাজিক বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও বিজ্ঞান) শিক্ষার্থীদের তিন বছরে মোট ২১০০ নম্বরের পরীক্ষা দিতে হয় (প্রথমবর্ষে ৭০০, দ্বিতীয়বর্ষে ৭০০ ও তৃতীয় বা চূড়ান্ত বর্ষে ৭০০ নম্বর)। অর্থাৎ আশি কিংবা নব্বই দশকের তুলনায় একেবারে দ্বিগুণ এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে দ্বিগুণেরও বেশি নম্বরের পরীক্ষা সফলভাবে মোকাবিলা করে তবেই একজন শিক্ষার্থীকে পাশ কোর্সের স্নাতক (গ্র্যাজুয়েট) হতে হচ্ছে। একই ভাবে চার বছর মেয়াদি অনার্স কোর্সের ক্ষেত্রেও একই কথা। ঢাকা, রাজশাহী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকাকালীন মোট ১৫০০ নম্বরের (অনার্স ৯০০ + সাবসিডিয়ারি ৬০০) আগের সেই সিলেবাস এখন আর নেই। মেজর ও নন-মেজর বলে কথিত ৩২০০ নম্বরের বিষয়, পত্র বা কোর্সের পরীক্ষা মোকাবিলা করে তবেই সম্মানসহ স্নাতক হওয়া যায়। এর মানে, পাশ কোর্সের মতোই অনার্সেও দ্বিগুণ বা এরও বেশি নম্বরের পরীক্ষা গ্রহণের বন্দোবস্ত করা হয়েছে।

আপাতদৃষ্টিতে বোঝা যায়, ডিগ্রি কোর্সটি (অনার্স এবং পাশ) খুবই দীর্ঘ এবং বেশ কঠিন। কিন্তু বাস্তবে? এমন দীর্ঘ ও কঠিনের আড়ালে আরও কি কিছু লুকিয়ে আছে? হ্যাঁ, আর প্রধানত এ কারণেই আজকের এ লেখাটির অবতারণা। এ এক অবিশ্বাস্য রকমের ভেলকিবাজি, নিজের সঙ্গে তো বটেই; গোটা জাতির সঙ্গেও। দিনের পর দিন, সপ্তাহের পর সপ্তাহ, মাসের পর মাস, এমনকি অনেকের কাছে অবিশ্বাস্য বলে মনে হলেও, বাস্তবতাটি এমনই যে-বছরে নামকাওয়াস্তে দু-চারদিন ক্লাসে উপস্থিত থেকেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন শত শত কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থী ডিগ্রি পাশ ও অনার্স এবং মাস্টার্সের মতো একেকটি পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়ে যাচ্ছে। অনিয়মিত নয়, ক্লাসে অনুপস্থিতদের নিয়মিত শিক্ষার্থী হিসাবেই বছর বছর এ সুযোগটি করে দিয়ে চলেছে কর্তৃপক্ষ। বাস্তবিকই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন উচ্চশিক্ষার হালহকিকত নিয়ে মানুষের ভাবনা ও দুর্ভাবনার শেষ নেই।

অতি সহজেই সুযোগ পেতে পেতে শিক্ষার্থীদের মাঝে এরূপ ক্লাস না করার প্রবণতা দিনদিন বেড়েই চলেছে। দিনে দিনে পরিস্থিতিটি যে কী মারাত্মক আকার ধারণ করেছে, তা শিক্ষার সঙ্গে যারা সরাসরি সম্পর্কযুক্ত নন; তাদের বোধকরি সহজে বিশ্বাসই করানো যাবে না। ডিগ্রি পাশ কোর্সের মেয়াদ এখন তিন বছর। সেমিস্টার পদ্ধতি অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের প্রথমবর্ষ, দ্বিতীয়বর্ষ ও তৃতীয়বর্ষে (চূড়ান্ত) পৃথকভাবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে পাশ করতে হয়। লক্ষ করার বিষয় হলো, অধিভুক্ত কলেজগুলোয় বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ৫০, ৪০, ২৫ শতাংশ, এমনকি শাখা বা বিষয় বিশেষে ১০ শতাংশ শিক্ষার্থীও ক্লাসে উপস্থিত থাকে না।


ভ্রমন
বিনোদন