বেগম জিয়ার গাড়ি বহরে হামলার প্রতিবাদে রংপুর জেলা যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

বেগম জিয়ার গাড়ি বহরে হামলার প্রতিবাদে রংপুর জেলা যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত বিএনপি চেয়ারপারসন, তিন বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কক্সবাজারে অসহায় রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরে মানব সেবায় যাওয়ার পথে গাড়ি বহরে গতকাল শনিবার আওয়ামীলীগের লেলিয়ে দেয়া গুন্ডা বাহিনী কতৃক আদমযুগীয় পৌশাচিক ও নগ্ন হামলার প্রতিবাদে যুবদল কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচি মোতাবেক আজ রবিবার সকাল ১১.০০ ঘটিকার সময় রংপুর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়স্থ দলীয় কার্যালয় থেকে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে রংপুর জেলা যুবদল।বিক্ষোভ মিছিলটি দলীয় কার্যালয়ের প্রধান ফটকে গেলে পুলিশি বাধার মুখে সেখানে এক সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।এদিকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করেছে প্রশাসন।রংপুর জেলা যুবদলের যুগ্ম-সম্পাদক শাহ্ মোঃ জিল্লুর রহমান জেমস্ এর পরিচালনায় সমাবেশ বক্তব্য রাখেন জেলা যুবদলের সভাপতি মোঃ নাজমুল আলম নাজু ও সাধারন সম্পাদক মোঃ সামছুল হক ঝন্টু। নেতৃদ্বয় কক্সবাজারে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবির পরিদর্শনের জন্য চট্রগ্রামে যাবার পথে ফেনী ও মিরস্বরাইয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গাড়ী বহরে হামলা ও মুন্সিগন্জ সহ কয়েকটি স্থানে প্রতিবন্ধকতা সৃস্টির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। এসময় কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারন করে বক্তারা বলেন এ ঘটনা প্রমান করে সরকারের পায়ের তলায় মাটি নাই। হামলা,মামলা,গুম,হত্যা,মিথ্যাচার,ইতিহাস বিকৃতি করে বিএনপিকে ধ্বংস করা যায় নাই বা জনগণের কাছ থেকে বিএনপি ও বেগম খালেদা জিয়াকে বিচ্ছিন্ন করা যায় নাই গত ১৮ অক্টোবর ঢাকায় এবং গতকাল চট্রগ্রামের পথে আবারো তা প্রমাণিত হলো।পথে পথে লাখো মানুষের অভাবনীয় উপস্থিতি দেখে তাদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। হামলা শুধু বিএনপি নেতাকর্মীদের গাড়ীতেই হয় নাই,বেছে বেছে গণমাধ্যম কর্মীদের গাড়ীতেও হামলা হয়েছে,আহত করা হয়েছে তাদেরকে, ক্যামেরা ভাংচুর ও ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টাও করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা।যাতে সাংবাদিকরা পথে পথে গণমানুষের ঢলের চিত্র না তুলতে পারে এবং হামলার চিত্রও যেনো না তুলতে পারে। এসময় আরও বলেন কোন দেশে বসবাস করছি আমরা। যারা সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবার নসিহত করছেন,তাদের কাছে প্রশ্ন যে সরকার মানবিক কাজে যাবার সময় বেগম জিয়ার গাড়ী বহরে হামলা করতে পারে।এদের অধীনে নির্বাচনে গেলে ভোটের প্রচারনা তো দূরের কথা,প্রার্থীদেরকে ঘর থেকেই বের হতে দেবে না। আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এর বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন বেগম খালেদা জিয়া আকাশ পথে হেলিকপ্টারে না গিয়ে সড়ক পথে যাচ্ছেন কেনো? তাঁকে জিজ্ঞাসা করতে চাই,সড়ক পথে যাওয়া কি নিষেধ? নাকি সড়ক পথে চলতে সড়ক মন্ত্রী হিসেবে উনার অনুমতি নিতে হবে।বেগম জিয়া কোন পথে যাবেন,তাও কি ওনারা ঠিক করে দেবেন। আসলে কর্তৃত্ববাদী শাসন বলে কথা! আরও বলেন-এরপর যদি কোনোভাবে বেগম জিয়া ও দলীয় নেতাকর্মীর উপর নগ্ন হামলা চালানো হয় তাহলে রংপুরের যুবসমাজকে সাথে নিয়ে অবৈধ ক্ষমতা পতনের আন্দোলন রংপুর থেকেই শুরু হবে ইনশাল্লাহ।

Share.