ঢাবি-বুয়েট ছাত্রলীগে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, আহত ৫

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে সাদমান নামে বুয়েটের এক ছাত্র ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বুয়েট ক্যাম্পাসের ভেতরে এ ঘটনা ঘটে।

দুইপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনার সূত্রপাত নিয়ে তিন ধরনের কথা শোনা যাচ্ছে।

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে গাঁজা সেবন নিয়ে জহুরুল হক হলের ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে বুয়েট ছাত্রলীগের কর্মীদের কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনার জেরে শুক্রবার বিকালে জহুরুল হক হলের ছাত্রলীগকর্মী ইমরানকে বুয়েট ক্যাম্পাসে আটকে রাখেন সেখানকার ছাত্রলীগের কর্মীরা।

বিষয়টি জানতে পেরে ঢাবির জহুরুল হক হল ছাত্রলীগের কর্মীরা ইমরানকে ছাড়িয়ে আনতে যান। তখন উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

অপরদিকে পুলিশ জানিয়েছে, পলাশী এলাকায় একটি দোকানে রুটি খাওয়া নিয়ে বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে।

অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, গায়ে ধাক্কা লাগা নিয়ে বিরোধের জেরে এ ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এ বিষয়ে বুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি শুভ্রজ্যোতি পাটোয়ারী বলেন, জহুরুল হক হলের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আগে আমাদের ওপর আক্রমণ করে। আমাদের নেতাকর্মীরা তাদের প্রতিহত করে। শুভ্রজ্যোতির দাবি, এ ঘটনায় তাদের পাঁচ কর্মী আহত হয়েছেন। এরা হলেন সৌরভ, দিব্য, অনিক, মহুরী ও সাদমান। তাদের মধ্যে সাদমানকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিত্সা দেয়া হয়েছে।

তবে ঢাবির জহুরুল হক হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিফ তালুকদার বলেন, ইমরান নামের আমাদের এক কর্মীকে আটক করে রাখে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। আমাদের কর্মীরা তাকে নিয়ে আসতে গেলে, তারা কর্মীদের ওপর হামলা করে।

এ ব্যাপারে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান যুগান্তরকে বলেন, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার খবর শুনে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। বিষয়টি মীমাংসার জন্য সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে। ওসি বলেন, একেকজন একেক ধরনের কথা বলছেন। তবে ঘটনার কারণ নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

Share.