শিক্ষামন্ত্রী পদত্যাগ করতে চাইলেন, হাসিনা বলেন, আপনি ১০০ ভাগ সফল

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

প্রশ্ন ফাঁসের বিতর্কের মুখে পদত্যাগ করতে চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতে সায় না দিয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে বলেছেন, ‘শিক্ষায় ১০০ অর্জন আছে। দু’একটি ঘটনায় সব অর্জন নষ্ট হতে দেয়া যাবে না। শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সব দফতর পরিচালনায় আরও কঠোর হোন। প্রশ্ন ফাঁসের মতো সরকারের মর্যাদা ক্ষুণ্ণকারী তৎপরতার বিষয়ে যাতে সঠিক তথ্য জনগণের কাছে যায় তা নিশ্চিত করতে হবে। সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র সংবাদকে জানায়, প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ নিয়ে হতাশ হয়ে গতকাল শিক্ষামন্ত্রী পদত্যাগের অভিপ্রায় ব্যক্ত করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেছেন।

এর আগে গত সোমবার জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন। এতে হতাশ হয়ে গতকাল রাজধানীতে একটি অভিজাত হোটেলে এক অনুষ্ঠানের এক ফাঁকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পদত্যাগের ইচ্ছা পোষণ করেন শিক্ষামন্ত্রী।

তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, ‘আমি পদত্যাগ করতে চাই। সম্মান নিয়ে যদি কাজ না করতে পারি তবে এ পদে থাকতে চাই না।’ এ সময় প্রধানমন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রীকে শান্ত হওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘পাগলামি করবেন না। আপনি আমার সঙ্গে চলেন গণভবনে।’

এরপর প্রধানমন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রীকে নিয়ে গণভবনে যান। সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষামন্ত্রীকে একান্তে দিক নির্দেশনা দেন। শিক্ষামন্ত্রীকে নির্দেশনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১০০ অর্জন রয়েছে, দুএকটি ঘটনায় সব অর্জন নষ্ট হতে দেয়া যাবে না। প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ, কারা কোথা থেকে কি করছে, কোন কোন দফতর কি করছে। কিভাবে সমস্যার সমাধান করা যায় সার্বিক বিষয় আমি নজর রাখছি।’

শিক্ষামন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কাজ চালিয়ে যান। মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তাদের নিয়ে বসেন। প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী, দুই সচিবসহ অন্যদের নিয়ে শক্তভাবে সব কিছু দেখেন।’ জিয়া উদ্দিন বাবলুর দাবির প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একজন দুজন বললেই সব শেষ হবে না। অনেক অর্জন আছে। কাজ করতে হবে।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শের পরপরই বেলা পৌনে দুটার দিকে শিক্ষামন্ত্রী সচিবালয়ে ফিরে আসেন। এর পর তিনি প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী, দুই সচিব সোহরাব হোসেইন, মো. আলমগীর, সব অতিরিক্ত সচিব, যুগ্ম সচিব ও উইং প্রধানদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন। বৈঠকে মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী সকলের উদ্দেশে দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন।

মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ তৈরি করে সরকারবিরোধী গোষ্ঠী যে কোন মূল্যে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। সুতরাং প্রশ্ন ফাঁসসহ যে কোন ইস্যুতে কঠোরভাবে কাজ করতে হবে। কোন কাজে গাফিলতি সহ্য করা হবে না।

সভায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘পরীক্ষার কয়েক মিনিট আগে যারা প্রশ্নের কথা বলে ফেসবুকে অপপ্রচার চালাচ্ছে। যারা সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে সক্রিয় হয়ে ওঠছে তাদের কেউ রেহাই পাবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর হস্তে অপরাধীদের দমন করবে।’

দ্যা সংবাদ

Share.