উত্তর সিটিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

 

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে ‘ধানের শীষ’ প্রতীকের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। তিনি গত নির্বাচনেরও বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। প্রার্থী বাছাইয়ে সাক্ষাৎকার গ্রহণের পর রাতে দলটি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ ঘোষণা দেন। এর আগে সোমবার রাত পৌনে ১০টায়  বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে বিএনপির মনোনয়ন বোর্ড  সাক্ষাৎকার নেওয়া শুরু করে।

খালেদা জিয়ার সঙ্গে বোর্ডে ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার, মাহবুবুর রহমান, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু ও সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ হাসানও পদাধিকার বলে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় ভোটে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী শাকিল ওয়াহেদকে দিয়ে সাক্ষাৎকার শুরু করেন খালেদা। তিনি বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক। গত বারের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল, বিএনপির বিশেষ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন, সাবেক সংসদ সদস্য অবসরপ্রাপ্ত মেজর আখতারুজ্জামানও প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ দেখিছেন। ঢাকা উত্তরের সভাপতি এম এ কাইয়ুমের পক্ষ থেকেও মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়া হয়েছিল। তার পক্ষে মনোনয়ন ফরম জমা দেন উত্তরের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, সাধারণ সম্পাদক আহসানুল্লাহ হাসান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ জি এম শামসুল হক।

২০১৫ সালে ঢাকা উত্তরের নির্বাচনে বিএনপির সমর্থন নিয়ে মেয়র প্রার্থী হয়েছিলেন তাবিথ। ভোটগ্রহণের মাঝপথে তিনি অনিয়মের অভিযোগ তুলে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিলেও ৩ লাখের বেশি ভোট পান। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথের চেয়ে ১ লাখ ৩৫ হাজার ভোট বেশি পেয়ে মেয়র হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত আনিসুল হক। তার মৃত্যুতে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি মেয়র পদে উপ-নির্বাচন হতে যাচ্ছে।

এদিকে বিএনপির বেশ কয়েকজনের আগ্রহের পাশাপাশি তাদের জোটসঙ্গী জামায়াতে ইসলামীর ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মুহাম্মদ সেলিমউদ্দিনও প্রার্থী হতে প্রচার চালাচ্ছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহও করেছেন তিনি।


 

 

Share.