কাতারে বাংলাদেশী ‘শ্রমের দাম’ বেড়েছে

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

আন্তর্জাতিক বাজারে গত বছর স্থানীয় মুদ্রার দাম ওঠানামা করায় সবচেয়ে লাভবান হয়েছে কাতারে কর্মরত বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের অভিবাসীরা।

২০১৭ সালে পাকিস্তানী রুপের দাম কমেছে ছয় শতাংশ ও বাংলাদেশী টাকার মূল্য কমেছে পাঁচ শতাংশ। এতে এই দুই দেশের শ্রমিকরা শ্রমের অতিরিক্ত মূল্য পেয়েছে।

গত বছরের ১ জানুয়ারি প্রতি কাতারি রিয়ালের বিপরীতে পাকিস্তানী মুদ্রার মূল্য ছিল ২৮.৬৪ রুপি। বছর শেষে এই মূল্য দাঁড়ায় ৩০.৩৯ রুপি। বছরের শুরুতে এক কাতারি রিয়ালের বিপরীতে বাংলাদেশী মুদ্রার দাম ছিল ২১.৬৬ টাকা। বছর শেষে তা হয় ২২.৭৩ টাকা।

এই সময়ে শ্রীলংকার মুদ্রার দামও কমেছে এক শতাংশ। তবে মুদ্রার দাম বেড়ে যাওয়ায় কাতারের বাজারে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ভারত ও নেপালের শ্রমিকরা। কাতারি রিয়ালের বিপরীতে ভারত ও নেপালের মুদ্রার মূল্য যথাক্রমে সাত ও পাঁচ শতাংশ বেড়েছে।

বছরের শুরুতে কাতারি রিয়ালের বিপরীতে ভারতীয় মুদ্রার মূল্য ছিল ১৮.৬৯ রুপি। বছর শেষে তা দাঁড়ায় ১৭.৪০ শতাংশ।

এ কারণে কাতার থেকে বাংলাদেশী ও পাকিস্তানী শ্রমিকদের আয়ের পরিমাণ বেড়ে গেছে। বাংলাদেশীরা প্রতি কাতারি রিয়ালের বিপরীতে পায় ২২.৭৩ টাকা। সেখানে ভারতীয়রা পায় ১৭.৩৫ রুপি।

Share.