গীতিকাব্য-লালবাগ কেল্লা ফারুক মোহাম্মদ ওমর

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

শাহজালাল পরাণ মাখদুম খানজাহানের দ্যাশে

লালবাগের এক কেল্লা আছে বিজয় বীরের ব্যাশে।

দিল্লি পুত্র আজম শাহে বাংলার সুবাদার

মহান দূর্গ লালবাগেরি প্রথম রূপকার।

বুড়িগঙ্গায় দস্যু এলো মগ আর পর্তুগীজ

লুটতরাজের ছত্রকলেই ছুড়ছে গোপন বীজ।

আওরঙ্গজেব হুকুম দিলো দূর্গ কর বেটা

প্রতিরোধ যে করতে হবে দস্যির ঝাটাপেটা।

দূর্গ হইল ঢাকার বুকে লালবাগেরি কেল্লা

কি মনোহর চমৎকারে দেশ প্রেমিকের মেলা।

সাথেই আছেন শায়েস্তা খান নবাব বাহাদুর

তাঁর হুংকারে মুচড়ে যেত শত্রুর মুড়ি গুর।

 

দুই কন্যার জনক তিনি জান্নাতি দুই ফুল

ইরানদোখত পরীবিবি শ্যামশাদের কালো চুল।

শাহজাদা পাগল হইল প্রথম দরশন

পরীবিবির রূপ যে ভারি জাগায় তনুমন।

দুজনারি মনের মাঝে মন করে টনটন

না দেখলে ভাল্লাগেনা মন ব্যাপারির মন।

প্রেমে পাগল দুহৃদয়ে দূর্গমুখর গান

বাজায় বাঁশি জ¦ীন পরীরা সুর সুর কলতান

এইনা প্রেমে নাও চালায়ে কবি লেখেন পাতা

সাক্ষী থাকুক ইতিহাসটা যুগের লতাপাতা।

হরদমে চলছে কাজ দক্ষিণ সদর তোরণ

তিনতলারি শাহী ইমারত কীর্তি এক কিরণ।

দরবার গৃহ দুইতলা নিচে হাম্মামখানা

বাদশা আমির ওমরা সভা প্রিয় গোসলখানা।

ঠান্ডা গরম পানি আছে আরামদায়ী গোছল

সুখের কথা কি বলিব দুখীর রাস্তা পিছল।

 

দিল্লি থেকে ফরমান এলো আজম শাহের উপর

নবাব হবে শায়েস্তা খান করতে ঢাকার কদর।

দূর্গের কথা কি বলিব দেখেই নয়ন জুড়ায়

মোঘল আমল করল কি ভাই ঢাকার দুনিয়ায়।

শাহজাদা পরীবিবির মন উঠল কেঁপে

দুইজনারি চলার মাঝে উঠল যেন ছেপে।

গুরুজনের চোখের দেখায় পাকাপাকি কথা

ফিরত এসেই পান করবে শাদীর বারতা।

সেই যাওয়ারি কদিন পরে আজরাঈলের থাবা

নবাব কন্যা উড়াল দিলো কান্দাইয়া মা-বাবা।

শায়েস্তা খান শোকে পাথর বুক ভাঙ্গলো হায়

আল্লার কাছে কিযে চাইলাম নিঝুম নিরালায়।

 

ইমারতের মাঝে কবর মার্বেল কারুকাজ

দেখবে তুমি প্রেমের পরশ মোহনীয় ভাঁজ।

পাথরের পর পাথর দিয়ে পিরামিডের মতন

মনগভিরে ভেবেই দ্যাখো ইতিহাস কত যতন।

গম্ভুজটা কি চমৎকার সোনালি রঙের ছোঁয়া

রোদের প্রেমে ঝলমলায়ে চিত্রিত মন ধোয়া।

লালবাগ কেল্লা বুড়িগঙ্গার দক্ষিণ-পশ্চিমে

কালের সৈনিক যুগমহিষুর ঘাম জড়ানো দামে।

 

সকাল বিকাল মানুষ মিলছে দূর্গের মেলায়

দেখে দেখে তৃষ্ণা মিটায় প্রেমের দরগায়।

কলম জুড়ে হাজার পাতা লালবাগেরি কথা

দূর্গ তুমি ঐতিহ্য অতীত বিজয় গাঁথা।

Faruque Mohammad Omar 
Share.