বিজেপির আমন্ত্রণে দিল্লি যাচ্ছেন আ.লীগের ২০ নেতা

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির আমন্ত্রণে দিল্লি যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। আগামী ২২ মে দিল্লির পথে রওনা দিয়ে ২৩ মে উচ্চ পর্যায়ের কয়েকটি বৈঠক শেষে ২৪ মে দেশে ফেরার কথা দলটির।

এ সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, বিজেপি সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবসহ দেশটির উচ্চ পর্যায়ের রাজনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন আওয়ামী লীগ নেতারা। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে দুই দেশের ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ নেতাদের এ বৈঠককে গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ বলেন, বিজেপির আমন্ত্রণে ২২ মে ভারত সফরে যাচ্ছি। দেশটির উচ্চ পর্যায়ের রাজনীতিকদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করব।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলে থাকছেন দলের সভাপতিম-লীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, আবদুল মতিন খসরু, পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, একেএম এনামুল হক শামীম, মেসবাহউদ্দীন সিরাজ, ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুুস সোবহান গোলাপ, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আবদুস সবুর, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন ও গোলাম রব্বানী চিনু।

প্রাথমিক তালিকায় ২২ জনের নাম থাকলেও শেষ মুহূর্তে ২০ জনের একটি প্রতিনিধি দল ভারত সফরে যেতে পারে বলেও আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে।

বিজেপির আমন্ত্রণে অনেক আগেই আওয়ামী লীগের এ প্রতিনিধি দলটির ভারত সফরে যাওয়া কথা ছিল। সর্বশেষ গত ১১ মার্চ তারিখ নির্ধারিত ছিল। কিন্তু ওই সময় ভারতের নয়াদিল্লিতে ইন্টারন্যাশনাল সোলার অ্যালায়েন্সের (আইএসএ) শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধানসহ অনেক দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান তখন দিল্লিতে ছিলেন। যে কারণে পিছিয়ে যায় আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদের ভারত সফর।

এ বিষয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে ওই সময় ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা পার্টি টু পার্টি আমন্ত্রণ। বিজেপির জেনারেল সেক্রেটারি আমন্ত্রণ করেছেন। তাদের অনেকের সঙ্গে সরকারিভাবে আবার পার্টিগতভাবে সাক্ষাৎ হবে। এর মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজসহ ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে দেখা হবে। সূত্র: আমাদেরসময়

Share.