Home / সারাদেশ / ‘আত্মঘাতি’ ৩ জঙ্গি : সন্ত্রাস দমন আইনে র‍্যাবের মামলা

‘আত্মঘাতি’ ৩ জঙ্গি : সন্ত্রাস দমন আইনে র‍্যাবের মামলা

রাজধানীর পশ্চিম নাখালপাড়ার জঙ্গি আস্তানা ১৩/১ রুবি ভিলার আত্মঘাতি তিন জঙ্গির বিরুদ্ধে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব-৩) সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দায়ের করেছে।

শনিবার (১৩ জানুয়ারি) রাতে ডিএমপি’র তেজগাঁও থানায় র‍্যাব-৩ মামলাটি দায়ের করে।
তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম কাজল ব্রেকিংনিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানন, র‍্যাব-৩ সন্ত্রাস দমন আইনে নিহত তিন জঙ্গির বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলা নম্বর ১০।

এর আগে, বিকেলে তিন জঙ্গিই র‍্যাবের বুলেটেই নিহত হয়েছেন বলে ময়নাতদন্ত শেষে জানিয়েছেন রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রধান সেলিম রেজা। শুক্রবার লাশ তিনটির সুরতহাল করে তেজগাঁও থানা পুলিশ। এরপর ময়নাতদন্তের জন্য লাশ তিনটি সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বিকেল ৩টা ২৭ মিনিটে হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সেলিম রেজা ময়নাতদন্ত শুরু করেন, শেষ করেন ৫টায়।

অধ্যাপক সেলিম রেজা ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমরা তেজগাঁও থানা থেকে পাঠানো তিনটি লাশ পেয়েছি। তিন জনের শরীরেই বুলেটের চিহ্ন আছে। গুলিতেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সুরতহাল প্রতিবেদন যে আঘাতের কথা উল্লেখ করা হয়েছে, আমরা সেই আঘাতগুলো পেয়েছি। একজনের শরীরে একটি বুলেট পাওয়া গেছে। তাদের প্রত্যেকের শরীরে অনেকগুলো আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। শরীরের সামনে ও পেছনের দিকে এসব আঘাত রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাধারণত বোমা বিস্ফোরিত হলে শরীরে যে ধরনের আঘাত পাওয়া যায়, তাদের শরীরে সে ধরনের কোনও বিস্ফোরণের নমুনা পাওয়া যায়নি। তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বিচ্ছিন্ন হয়নি। বিষয়টি রাস্ট্রীয়ভাবে অত্যন্ত গোপনীয়। সব তথ্য জানানোর বিষয়ে আমাদের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। আমি বিস্তারিত আমার প্রতিবেদনে লিখবো।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ২টার দিকে পশ্চিম নাখালপাড়ার ১৩/১ ঠিকানার রুবী ভিলায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব। ওই বাড়ির পঞ্চম তলায় কয়েকজন জঙ্গি রয়েছে- এমন খবরের ভিত্তিতে বাড়িটিতে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। এক পর্যায়ে বাড়ির ভেতর থেকে গুলিবর্ষণ ও গ্রেনেড নিক্ষেপ করা হলে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। পরে ভেতর থেকে তিন জঙ্গির লাশ উদ্ধার করা হয়। ছয় তলা বাড়িটির মালিক সাব্বির রহমানের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহে।

র‌্যাব জানিয়েছে, তিনি বিমান বাহিনীর ফ্লাইট অফিসার হিসেবে কাজ করতেন। তার বাড়ির পঞ্চম ও ষষ্ঠ তলা মেস হিসেবে ভাড়া দেয়া ছিল। জানা গেছে, ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে বাসাটি ভাড়া নিয়েছিল জঙ্গিরা।

এর আগে, ২০১৩, ২০১৬ ও ২০১৭ সালে আরও তিনবার অভিযান চালানো হয়েছিল ওই বাসায়। আগের অভিযানগুলোতে জামায়াত-শিবিরের বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতারও করা হয়।

এখানে মন্তব্য করুন
শেয়ার করতে আপনার একাউন্ট আইকণে ক্লিক করুন

Check Also

প্রেমিককে ছুরিকাঘাতকারী ইডেনছাত্রী লাভলী কারাগারে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) জগন্নাথ হলের পেছনের গেটের বিপরীতে সাবেক প্রেমিক আলামিন হোসেনকে (২৫) ছুরিকাঘাতকারী রাজধানীর …