Home / বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি / জরুরি সেবা ‘৯৯৯’ এ আসা অর্ধেকের বেশিই ব্ল্যাঙ্ককল

জরুরি সেবা ‘৯৯৯’ এ আসা অর্ধেকের বেশিই ব্ল্যাঙ্ককল

তথ্য-যোগাযোগ ও প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছনোর লক্ষ্যেই চালু হয়েছিল জরুরি সেবা ‘৯৯৯’ এর কার্যক্রম। উদ্বোধনের পর ব্যাপক সারা ফেললেও এই হেল্পলাইনটিতে ফোন করে সেবা চাওয়ার চেয়ে অযথা ব্ল্যাঙ্ককলই বেশি আসছে। গত বছরের ১২ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে জরুরি সেবার এই হেল্পলাইনটি। ‘৯৯৯’ এই নাম্বারটিতে কল করে নিমিশেই মিলবে ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পুলিশি সেবা। কিন্তু সর্বশেষ ৬ জানুয়ারি পর্যন্ত হেল্পলাইনটিতে মোট কলের পরিমান ছিল মাত্র ২.৬৯ শতাংশ।

 

পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ১২ ডিসেম্বর থেকে ৬ জানুয়ারি পর্যন্ত জরুরী সেবার নাম্বার ‘৯৯৯’ এ ফোন কলের সংখ্যা ছিল ৪ লাখ ৪৬ হাজার ৭৬ টি। সে হিসেবে দিন প্রতি কলের সংখ্যা ১৭ হাজারেরও বেশি।এরমধ্যে মাত্র ১২ হাজার কলের মাধ্যমে সেবা দেওয়া হয়েছে। যা মোট কলের মাত্র ২.৬৯ শতাংশ। মোট কলের অর্ধেকের বেশি অর্থাৎ ২ লাখ ৫৯ হাজার কলই ছিল ব্ল্যাঙ্ক কল। এছাড়া, অন্যান্য মিথ্যা বা ভুল কলের পাশাপাশি ৫৫ হাজার ৮৮৩ টি কল ছিল বিভিন্ন তথ্য জানতে চেয়ে।

বাংলাদেশ পুলিশের ডিআইজি (টেলিকম অ্যান্ড ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট-টিঅ্যান্ডআইএস) ও ৯৯৯ সার্ভিসের সমন্বয়কারী ব্যরিস্টার হারুন অর রশীদ সবাইকে পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, অপ্রয়োজনে ৯৯৯ এ অনেক ফোন আসে। এতে কল টেকাররা অহেতুক ব্যস্ত থাকেন, ফলে প্রকৃত বিপদগ্রস্তরা সেবা গ্রহণ থেকে বঞ্চিত হন।

তিনি বলেন, কল সেন্টারে অনেকেই ফোন দিয়ে অযাচিত কথাবার্তা বলেন। ব্যক্তিগত আলাপচারিতাও করতে চান কেউ কেউ। তবে তাদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করে বুঝিয়ে বলা হয়, এখানে কেবল তিনটি বিষয়ে জরুরি সেবা দেয়া হয়। তারপরও অনেকেই অহেতুক কল দিয়ে বিরক্ত করেন।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক বলেন, উদ্বোধনের পর থেকে এখন পর্যন্ত ৯৯৯ নম্বরে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। কে কোন এলাকা থেকে থেকে কল করছেন সকল তথ্যই কন্ট্রোল রুমের স্ক্রিনে ভেসে উঠে।

সেবামূখী-গণমূখী পুলিশি সেবার অংশ হিসেবে ৯৯৯ চালু করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পর্যায়ক্রমে এ সেবা আরও বিস্তৃত করা হবে। পরবর্তী সময়ে সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই সেবা চালু করা হবে। গণমূখী পুলিশি ব্যবস্থায় অপরাধ দমনে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

জানা গেছে, উদ্বোধনের পর থেকে ৯৯৯’এ সাহায্যের জন্য খুবই কম কল এসেছে। প্রথমদিকে সেবা শুরু হওয়ার ঘটনাটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য কলের সংখ্যা ছিল বেশি। সবমিলিয়ে প্রতিদিন সারাদেশ থেকে আসা অন্তত প্রায় ১০-১৫ হাজার কল রিসিভ করা হচ্ছে।

৯৯৯ নম্বরে এক সঙ্গে ১২০টি কল রিসিভ করা সম্ভব। বর্তমানে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১২০জন কন্ট্রোলরুমে দায়িত্ব পালন করছেন। আগামী ২-৩ বছরে এ বিভাগের সদস্য সংখ্যা ৫০০জনে উন্নিত করার লক্ষ্য রয়েছে।

১২ ডিসেম্বর ‘৯৯৯’-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র ও তার তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। সে সময় তিনি বলেন, ‘নাগরিক সব সুবিধাকে সহজলভ্য করে আগামীর দেশ গড়তে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে আওয়ামী লীগ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আদলে প্রযুক্তি সেবা পাবে দেশবাসী।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছনোর লক্ষ্যেই চালু হচ্ছে জরুরি পুলিশি সেবা ৯৯৯ কার্যক্রম। ৯৯৯ সেবাটি সম্পূর্ণ টোলমুক্ত অর্থাৎ এ নম্বরে কল করলে কোনো ফি দিতে হবে না। এর আগে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে ৯৯৯ নম্বরের সেবাটি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়। তারপর থেকে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগ পর‌্যন্ত ২৭ লাখেরও বেশি কল রিসিভ করা হয়।

এখানে মন্তব্য করুন
শেয়ার করতে আপনার একাউন্ট আইকণে ক্লিক করুন

Check Also

কি কি কারণে হ্যাক হতে পারে ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট: Meghla Ovi

যে কারণে হ্যাক হতে পারে আপনার ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট:: Meghla Ovi

প্রযুক্তিবিদ্যার উন্নয়নের ফলে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো। আর সেই তালিকায় প্রথমেই আছে ফেসবুক। …